রবিবার, ০৯ অগাস্ট ২০২০, ০৫:৪৯ পূর্বাহ্ন
শিরোনামঃ
দেখুন বন্যার পানিতে মাছ শিকারে উৎসবে মেতেছে জেলেরা লেবাননে ভয়াবহ ক্যামিকেল বিস্ফোরনের মত বড় ধরনের দূর্ঘটনা থেকে রক্ষা পেল বাংলাদেশ করোনায় দিল্লিতে আটকা পড়া তাবলীগ জামাতের ১৪ সদস্য দেশে ফিরেছে মঠবাড়িয়ায় স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি শফিউল বারী বাবু স্মরণে দোয়া ও মিলাদ পিরোজপুরে গৃহবধুকে হত্যার বিচারের দাবীতে পিতার সংবাদ সম্মেলন করোনায় আক্রান্ত মডেল সানাই স্বেচ্ছসেবক লীগের কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদকের পিতার মৃত্যু বার্ষিকীতে পিরোজপুরে দোয়া ও মিলাদ বন্যাকবলিত এলাকার দুঃখী মানুষের পাশে ছাত্র ইউনিয়নের কর্মীরা টিকটকে আপত্তিকর ভিডিও ছাড়ায় শাস্তির মুখে ৫ নারী এফডিসির সদস্যদের জন্য এবারও ৫টি গরু কোরবানি দেবেন অভিনেত্রী পরীমণি

মহিষ চুরি মামলায় আসামী উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক : তদন্ত করছে জেলা কমিটি

স্টাফ রিপোর্টার,ঝিনাইদহ
  • প্রকাশের সময় : বুধবার, ২৯ জুলাই, ২০২০
  • ২৪০ জন দেখেছেন

মহিষ চুরির মামলায় ফেঁসে গেছেন ঝিনাইদহের কালীগঞ্জ উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মনির হোসেন সুমন। এ নিয়ে জেলা ও উপজেলা ছাত্রলীগে তোলপাড় শুরু হয়েছে। ঘটনার সুষ্ঠ তদন্তে জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি রানা হামিদ ও সাধারণ সম্পাদক আব্দুল আওয়াল চার সদস্য বিশিষ্ট একটি তদন্ত কমিটি গঠন করেছেন।

পুলিশ সুত্রে জানা গেছে, কোটচাঁদপুর উপজেলার গুড়পাড়া থেকে গত ১৬ জুন কৃষক নাসির উদ্দীনের দুইটি মহিষ চুরি হয়। এ ঘটনায় কোটচাঁদপুর থানায় গত ২৬ জুন একটি মামলা হলে পুলিশ কালীগঞ্জ উপজেলার চাচড়া গ্রামের আজগার আলীর ছেলে সেলিমের বাড়ি থেকে একটি মহিষ উদ্ধার করে। পুলিশের হাতে গ্রেফতার হয় সেলিম। তিনি আদালতে স্বীকারোক্তিমুলক জবানবন্দি দেন। সেখানেই নাম আসে কালীগঞ্জ উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মনির হোসেন সুমনের।

আদালতে সেলিম জানান, তিনি চোর নন। মহিষটি শিবনগর গ্রামের মনির হোসেন সুমন, একই গ্রামের মিলন, কোটচাঁদপুরের বলুহর গ্রামের ঢালীপাড়ার তরিকুল ও চুয়াডাঙ্গার রশিদ তার কাছে বিক্রি করেন। মামলার তদন্ত কর্মকর্তা কোটচাঁদপুরের এসআই তৌহিদ ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে জানান, আমরা চুরি হওয়া দুইটি মহিষ উদ্ধার করে মালিককে ফেরৎ দিয়েছি।

এই মামলায় কালীগঞ্জ উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক সুমন জড়িত বলে আদালতে স্বীকারোক্তিমুলক জবানবন্দি দিয়েছে আসামী সেলিম। চোর ধরতে গ্রেফতারে অভিযান চলছে। কালীগঞ্জ উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক সুমন মুঠোফোনে জানান, এ বিষয়ে আমি কিছুই জানি না। তবে এ রকম কিছু হলে আমি ষড়যন্ত্রের শিকার হয়েছি।

ঝিনাইদহ জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি রানা হামিদ ও সাধারণ সম্পাদক আব্দুল আওয়াল জানান, ঘটনা মিথ্যাা হলে আমরা সাংগঠনিক ভাবে ষড়যন্ত্রকারীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেব। আর যদি সঠিক হয় তবে সাধারণ সম্পাদকের বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা গ্রহন করবো। তারা জানান, এ বিষয়ে তারা মঙ্গলবার চার সদস্য বিশিষ্ট একটি তদন্ত কমিটি গঠন করেছেন।

আগামী ৭ কার্যদিবসের মধ্যে তদন্ত কমিটিকে রিপোর্ট দিতে বলা হয়েছে। তদন্ত কমিটিতে রয়েছেন ছাত্রলীগ নেতা মুশফিকুর রহিম নাছিম, তৌহিদুল ইসলাম, এনামুল হক আবু ও মোঃ রায়হান খান।

শেয়ার করুন

আরও সংবাদ পড়ুন
All rights reserved © 2020 prothinkbd (এই সাইটের নিউজ, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া কপি করা থেকে বিরত থাকুন)
Design & Developed By: NCB IT
11223
Shares